এক নজরে বাজেট ২০২১

এক নজরে বাজেট ২০২১

টিম যুগান্তর: সোমবার ২০২১-২২ আর্থিক বর্ষের জন্য কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।শুরুতেই তিনি স্পষ্ট করে বলেন, এইবারের বাজেট প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ‘আত্মনির্ভর ভারত’ দৃষ্টিভঙ্গিকে নজরে রেখে তৈরি করা হয়েছে।

উল্লেখযোগ্য ভাবে সড়ক পরিকাঠামো উন্নয়নে জোর দেওয়া হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, তামিলনাডু, কেরালার উপর। এই চারটি রাজ্যেই সামনে বিধানসভা ভোট। তবে এই রাজ্যগুলির মধ্যে সবথেকে কম অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের উদ্দেশ্যে। একই সঙ্গে জাতীয় রেল পরিকল্পনাও তৈরি করা হয়েছে।

এই দিন পশ্চিমবঙ্গের সড়ক পরিবহন উন্নয়ন বাবদ ২৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে, একই সঙ্গে কলকাতা শিলিগুড়ি সড়কের উন্নয়ন ঘোষণা করা হয়েছে।এমনকী আসাম এবং পশ্চিমবঙ্গের চা শ্রমিকদের কল্যাণের জন্যও হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

অর্থনীতিবীদ ও আর্থিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন করোনা অতিমারির জেরে তছনছ হয়ে যাওয়া অর্থব্যবস্থাকে এই বাজেট পুনরুদ্ধার করবে।

বাজেটে প্রথমেই জোর দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য ক্ষেত্রের উপর। ছয় বছরে ৬৪,১৮০ কোটি টাকার প্রকল্প করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ জানান ৩৫ হাজার কোটি টাকা করোনা টিকার জন্য বরাদ্দ করা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন ১৫টি জরুরী স্বাস্থ্য বিষয়ক হাসপাতাল তৈরি হবে। শিশু মৃত্যুর হার কমাতে “মেড ইন ইন্ডিয়া ভ্যাকসিন”এর উপরও জোর দেবে কেন্দ্র।

স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানকে মজবুত করতে জাতীয় স্বাস্থ্য মিশন এর পাশাপাশি চলবে ১৭০০০ গ্রামীণ স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং ১১০০০ স্বাস্থ্য কেন্দ্র পুনরুজ্জীবিত করা হচ্ছে।এমনকী দেশের সব জেলায় পরীক্ষাগার তৈরি করা হবে।

পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চীনের সঙ্গে ভারতের সীমান্ত সংঘাত বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে। এমন একটা সময়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ এবারের বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে ৪.৭৮লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ করেন।

এই বাজেটে কৃষকদের নিয়ে বড় বার্তা উঠে এসেছে। নির্মলা সীতারমণ জানান, “কেন্দ্র কৃষকদের পাশে রয়েছে, কৃষকদের থেকে ৭৫ হাজার কোটি টাকার গম কেনা হয়েছে; কৃষকদের ঋণ দেওয়া হবে ১৫.৫লক্ষ কোটি টাকা।”

তবে সাধারণ মানুষের বাজেটের যেদিকে সবথেকে বেশি নজর থাকে,সেই আয় করের ক্ষেত্রে কিন্তু বিশেষ পরিবর্তন আনা হয়নি শুধু মাত্র ৭৫ বছরের উর্ধ্বে পেনশনভোগীদের আয় কর মুকুব করা হয়েছে। তবে ৭৫ বছরের ঊর্ধ্ব ব্যক্তিদের অন্য আয়ের উৎস থাকলে সে ক্ষেত্রে কর দিতে হবে।

এই কেন্দ্রীয় বাজেট এর বিরুদ্ধে মুখ খুলে রাহুল গান্ধী টুইটারে লেখেন “জনসাধারণের হাতে অর্থ তুলে দেওয়া তো দূর, মোদী সরকার ভারতের সমস্ত সম্পদ তাদের পুঁজিবাদী বন্ধুদের হাতে তুলে দেওয়ার কথা ভাবছে। ”

অর্থমন্ত্রী সেদিন আরও জানান, “এখন থেকে ৫০ লক্ষ নয়, দু’কোটি টাকা পর্যন্ত মূলধন থাকলে সেগুলি ছোট কোম্পানি রূপে পরিচয় পাবে।রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর জন্য কুড়ি হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। যেসব সরকারি সংস্থা লোকসানে চলছে তা বিক্রি করে ১ লক্ষ ৭৫ হাজার কোটি টাকা পাওয়া যাবে। এয়ার ইন্ডিয়া, পবন হংস, বিপিসিএল এর বেসরকারিকরণ করার কথা ঘোষণা করা হয় বাজেটে।

সরকারের মোট আর্থিক ব্যয় ধার্য করা হয়েছে ৩৪.৫ লক্ষ কোটি টাকা। রেলে বরাদ্দ করা হয়েছে ১১০,০৫৫ কোটি টাকা এবং বীমা ক্ষেত্রে ৪৯ শতাংশ থেকে ৭৪ শতাংশ করা হয়েছে।

অন্যদিকে জানা যায় নারীরা সর্বক্ষেত্রে কাজ করতে পারবেন, শিক্ষণীয় স্কিম শুরু করা হচ্ছে; যা থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে। শিক্ষাক্ষেত্র উন্নত করতে দুবাই ও জাপানের সঙ্গে চুক্তি হতে চলেছে।

বেসরকারি ক্ষেত্রে বড় বন্দর গুলিকে তুলে দেওয়া হবে।এক্ষেত্রে এক হাজার কোটির বেশি অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে, পুরনো জাহাজ পুনর্নির্মাণ করা শুরু হয়েছে; ইউরোপ ও জাপান থেকে আরও জাহাজ ভারতে আনা হবে। এক্ষেত্রে প্রায় ১.৫ লক্ষ কর্মসংস্থান হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

বস্ত্র শিল্পের জন্যও রপ্তানি এবং কর্মসংস্থানের পথ তৈরি করা হবে। এক্ষেত্রে ২১৭টি প্রকল্প ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বাজেটে একাধিক আমদানিকৃত যন্ত্রাংশের উপর শুল্ক বৃদ্ধি পেয়েছে,তবে এই শুল্ক কমানোর জন্য সোনা এবং রুপোর মত পণ্যের দাম কমবে।

শেয়ার করুন

0Shares
0
অর্থনীতি, রাজনীতি এবং সাম্প্রতিক