অক্ষত আছে পারসারভেরান্স রোভার, ভিডিও প্রকাশ করল নাসা

অক্ষত আছে পারসারভেরান্স রোভার, ভিডিও প্রকাশ করল নাসা

টিম যুগান্তর: গত সোমবার নাসা-র তরফে একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়। তিন মিনিটের এই উচ্চমানের ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে সাদা ও কমলা রঙের একটি প্যারাসুট খুলে যাচ্ছে এবং লাল মাটির ধূলিকণা উড়িয়ে মঙ্গল গ্রহের মাটিতে অবতরণ করছে নাসার তরফে পাঠানো পারসারভেরান্স রোভার। এটি সত্যিই এক রোমহর্ষক ভিডিও যা দেখে অদ্ভুত শিহরণ জাগে।
এই রোভার অবতরণ টিমের প্রধান ব্যক্তি যিনি উন্নত মানের ক্যামেরা তৈরীর প্রধান শীর্ষক, ডেভ গ্রুয়েল বলেন, “আমি যতবার এই ভিডিওটা দেখেছি, ততবারই রোমহর্ষক লেগেছে।”
এই পারসারভেরান্স রোভার গত বৃহস্পতিবার মঙ্গলে অবস্থিত পুরনো এক শুকিয়ে যাওয়া নদীর পাশে জেজেরো লেক এর মধ্যে অবতরণ করে আনুবিক্ষণিক জীবনের খোঁজের উদ্দেশ্য।
এক সপ্তাহ এই ভিডিওটি ভালো ভাবে পরিলক্ষিত করার পর ক্যালিফোর্নিয়ার পাসাদেনার জেট পরিচালক পরীক্ষাগারের একটি টিম এই ভিডিওটি সাংবাদিক সম্মেলনে প্রকাশ করে আনুষ্ঠানিকভাবে।
অবতরণ টিমের ইনচার্জ আল চেন বলেন, “এই ভিডিও এবং চিত্রগুলো আমাদের অনেক স্বপ্ন বিজড়িত সম্পদ।”
ছয়টি অফশেল্ফ ক্যামেরা উপর নীচের বিভিন্ন কোণ থেকে চিত্র গ্রহণ করেছে। এই ক্যামেরা গুলির একটি বাদে সবকটি কাজ করছিল। অবতরণের পর মাইক্রোফোনটি বিকল হয়ে পড়লেও মাটি ছোঁয়ার আগে রোভারের ইঞ্জিন ও বাতাসের আওয়াজ রেকর্ড হয়েছে।
মঙ্গল গ্রহের যে কয়েক হাজার চিত্র পাওয়া গেছে তা দেখে ফ্লাইট কন্ট্রোলাররা রীতিমতো বিস্ময়ে কারণ অবতরণের পরেও রোভারটি অক্ষত রয়েছে এবং আগামী দু’বছর এটি নদী দ্বীপে ও পাথর গুলিকে ছেদ করে নমুনা সংগ্রহ করে প্রাণের অনুসন্ধান ও বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষা করবে। সংগৃহীত নমুনা গুলি সংরক্ষণ করে রাখা হবে পৃথিবীতে ফিরে আসার জন্য।
তিন বিলিয়নের মিশনে নাসা পঁচিশটি ক্যামেরা বরাদ্দ করে যার বেশিরভাগই মঙ্গলে অনুসন্ধানের জন্য ব্যবহৃত হয়েছে।
২০১২ সালে মঙ্গলে পাঠানো কিউরিওসিটি শুধুমাত্র মঙ্গলের ভূখণ্ডের কয়েকটি অস্পষ্ট চিত্র পাঠাতে পেরেছে, যদিও সেটি এখনও কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান মঙ্গলযানটিও ধূলিভূত সৌর প্যানেল দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
ডেপুটি প্রজেক্ট ম্যানেজার(উপ প্রকল্প ব্যবস্থাপক) ম্যাট ওয়ালেস বলেন, তাঁর কন্যা জিমন্যাস্টিক করার সময় যখন পালটি মারতো তখন একটা ক্যামেরা সেটি রেকর্ড করতো, সেটি দেখেই তিনি এই মঙ্গলযান অবতরণের রেকর্ড করার বিষয়টি মাথায় আনেন। তিনি আরও বলেন, “ভিডিওটি দেখে মঙ্গলে অবতরণের বিষয়টি কেমন হয় সেই ব্যাপারে আপনাদের বুঝতে সুবিধে হবে।”
নাসা-র বিজ্ঞান মিশনের প্রধান থমাস জুরবুচেন বলেন, “ভিডিও ও চিত্রগুলি এত কাছ থেকে দেখা যাচ্ছে আপনার মনে হবে যেন আপনি নিজেই কোনও প্রেশার স্যুট ছাড়া সরাসরি মঙ্গলে অবতরণ করছেন।”
ইঞ্জিনিয়ারদের মতে নাসার এই চিত্রগুলি কয়েক দশক পর মঙ্গলের জন্য মহাকাশচারী বিমান প্রস্তুত করতে সাহায্য করবে।
চিত্র বিজ্ঞানী জাস্টিন মাকি বলেন, “চলতি বছর আমাদের জন্য বেশ কঠিন, তবে এই চিত্রগুলি আমাদের দিনগুলিকে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে।”

শেয়ার করুন

0Shares
0
এখন জ্ঞান বিজ্ঞান সাম্প্রতিক