বেসরকারীকরণ কি মোড় ঘোরাতে চলেছে অর্থনীতির?

বেসরকারীকরণ কি মোড় ঘোরাতে চলেছে অর্থনীতির?

টিম যুগান্তর: ভারতের সরকারগুলি বরাবরই বেসরকারিকরণ সম্পর্কিত কিছু ভ্রান্ত ধারণা পোষণ করে এসেছে। এর বেশিরভাগই, বেসরকারিকরণের ইতিহাসের পরিপ্রেক্ষিতে এই প্রক্রিয়ার ওপর বিশ্বাসের অভাব থেকে উদ্ভূত হয়েছে। সরকারগুলি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলিতে তাদের কিছু অংশ যা বিনিয়োগ করা হয়েছিল বা তাদের কিছু অংশ ছিল তা ফেরত নিয়ে নেয়। তবে এগুলি খুব কমই প্রভাব ফেলেছে কারণ এইসব সংস্থা বা কোম্পানি গুলি বিভিন্ন কারণে ব্যবসার উন্নতি বা প্রসার বাড়ানোর ক্ষেত্রে দক্ষতা দেখাতে পারেনি এবং ব্যবসা ডুবে যায়, এক রিসর্ট কোম্পানিই শুধু ভাল ব্যবসা করতে পেরেছিল। ১৯৯০-এর শেষের পর থেকে এরকম উদাহরণ খুঁজে পাওয়া কঠিন যেখানে এই ধারণাটির মাধ্যমে ভারত মুদ্রা অর্জন করতে সফল হয়েছ। ব্যালকো(Balco) এবং ভিএসএনএল(VSNL)-ই দুই কোম্পানি যারা সফল হয়েছিল।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বারংবার বেসরকারিকরণের ওপর জোর দিয়ে আসছেন। গত কয়েক সপ্তাহের বক্তৃতায় তিনি বেশ কয়েকবার এই কথা বলেছেন। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন কেন্দ্রীয়করণ বাজেটে বেসরকারীকরণের পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থার সম্পদের নগদীকরণের কথা উল্লেখ করেছিলেন। স্পষ্টতই, একটি পরিকল্পনা রয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রীর বারবার সেই কথা উল্লেখ করে আসছেন। শেয়ারগুলি বিক্রি করা অথবা বেসরকারিকরণের দ্বারা অর্থনৈতিক উন্নতি হবে ও সরকারের প্রতিশ্রুতি রক্ষাও হবে।
তিনটি কারণের জন্য এটিকে একটি ভাল পদক্ষেপ বলে গণ্য করা যেতে পারে। এগুলির মধ্যে প্রথমটি হল সরকারের কোনও ব্যবসায়িক আগ্রহ নেই। দেশের মূলধন অন্য খাতে ব্যবহার করা যেতে পারে। দ্বিতীয়টি হল বেসরকারীকরণের মাধ্যমে প্রতিযোগিতামূলক ভাবে গ্রাহকদের প্রদত্ত পরিষেবাগুলির গুণমান এবং তাদের কাছে উপলব্ধ পছন্দগুলিকে প্রসারিত করা। ভারতের তরফে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে যেসব রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলি রয়েছে, কৌশলগতভাবে তার চারটি গুরুত্বপূর্ণ খাতের বেসরকারীকরণ করা হবে। এমনকি এই চারটিতেও রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলির সংখ্যা “সর্বনিম্ন” রাখা হবে। তৃতীয়টি হল অর্থ, যা দেশ বেসরকারীকরণ থেকে উপার্জন করতে পারে আশা করা যায়। সরকারের সম্পদগুলি পর্যবেক্ষণের পরিকল্পনাগুলি ₹২.৫ ট্রিলিয়ন বিনিয়োগ অর্জন করতে সহায়তা করবে। কেন্দ্রীয় সরকারকে এটির জন্য একাধিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে এবং একটি উপায় খুঁজে বের করতে হবে। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংক এবং সংস্থাগুলির বেসরকারীকরণের প্রচেষ্টার ক্ষেত্রে সরকারকে বিভিন্ন বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সম্মুখীন হতে হবে। বিভিন্ন কর্মচারী ইউনিয়নগুলির সাথে মোকাবিলা করতে হবে। বেসরকারীকরণের এই প্রক্রিয়া কে সুষ্ঠু ও স্বচ্ছতার সাথে বহন করে নিয়ে যেতে হবে যাতে অবশেষে এই প্রক্রিয়া কিছুটা অগ্রগতি অর্জন করতে পারে এবং ভারতের বেসরকারীকরণের ট্র্যাক রেকর্ডকে উন্নত করতে পারে।

শেয়ার করুন

0Shares
0
অর্থনীতি, রাজনীতি এবং সাম্প্রতিক