নির্বাচনকে ঘিরে উত্তপ্ত নন্দীগ্রাম!!

নির্বাচনকে ঘিরে উত্তপ্ত নন্দীগ্রাম!!

টিম যুগান্তর: রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় গতকাল চার জেলায় মোট ৩০টি আসনে ভোটগ্রহণ হয়। পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম, তমলুক, হলদিয়া, মহিষাদল, পাঁশকুড়া-পূর্ব, পাঁশকুড়া-পশ্চিম, নন্দকুমার চণ্ডীপুর এছাড়া পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর, চন্দ্রকোনা, ঘাটাল, দাসপুর, খড়গপুর, পিংলা, সবং, নারায়ণগড়ে ছিল ভোটগ্রহণ। এছাড়া বাঁকুড়ার তালডাংরা, বাঁকুড়া বড়জোড়া, ওন্দা, বিষ্ণুপুর কোতুলপুর, সোনামুখী ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার গোসাবা, পাথরপ্রতিমা ও কাকদ্বীপে গতকাল ভোটগ্রহণ হয়। এরমধ্যে সর্বাধিক আলোচিত নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে বিজেপির মুখপ্রার্থী শুভেন্দু অধিকারীকে জীবনের কঠিনতম পরীক্ষায় যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী দেখালো। তিনি সকাল সাতটার মধ্যে নন্দীগ্রামে ঢুকে পড়েন। এদিকে বেলা গড়াতে তৃণমূল প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বেয়াপড়া বাড়ি থেকে বেরিয়ে বয়ালে পৌঁছাতে এলাকায় উত্তেজনা শুরু হয়। এখানে তৃণমূল বিজেপির বিরুদ্ধে তাদের বুথ এজেন্টকে বসতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করা হয়। শুভেন্দু দাবি করেন ৭০ থেকে ৮০টি বুথে তৃণমূল এজেন্ট দিতে পারেননি। তিনি আরও বলেন নন্দীগ্রামের জনগণের সাথে তার কুড়ি বছরের সম্পর্ক। তাই তাদের ওপর তার যথেষ্ট বিশ্বাস। এইদিকে মোটামুটি শান্তিপূর্ণ ভোট চললেও বয়ালের বুথে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রায় দু’ঘণ্টা থাকার পর তাকে কড়া নিরাপত্তায় বের করে আনা হয়। তিনি ওখান থেকে রাজ্যপালকে ফোন করলে রাজ্যপাল আশ্বাস দেন গণতন্ত্রকে অক্ষুন্ন রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। ঐদিন উপনির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন রাজ্য নির্বাচন কমিশনে কাছ থেকে নন্দীগ্রামে পরিস্থিতি জানতে চান। ঐদিন বিভিন্ন ভোট কেন্দ্র থেকে ছোট-বড় সন্ত্রাসের ঘটনা শোনা যায়, ময়নায় বিজেপি করার অপরাধে এক অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ভোট দিয়ে আসার সময় তার ওপর দুষ্কৃতীরা হামলা চালায়। অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কেশপুরে বিজেপির এক দলীয় কর্মীকে কোপানোর অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে, আক্রান্ত যুবকের নাম রাজু সাঁতরা তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তবে এ বিষয়ে মুখ খোলেননি শাসক দল। ডেবরা প্রার্থী ভারতী ঘোষকে ঘিরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হলে তিনি রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ জানান। এছাড়া প্রাণনাশের হুমকি পোলিং এজেন্টের ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ, গাড়ি ভাঙচুর ইত্যাদি নানান ঘটনা সামনে আসে। তবে এই কেন্দ্রগুলিতে মোট ভোট পড়েছে ৮০.৪৩ শতাংশ।দক্ষিণ ২৪ পরগনায়
৭৯.৬৫ শতাংশ, পূর্ব মেদিনীপুরে ৮১.২৩ শতাংশ, পশ্চিম মেদিনীপুরে ৭৮.০২ শতাংশ, বাঁকুড়ার ৮২.৯২ শতাংশ। কেবল নন্দীগ্রামে ৮০.৭৯ শতাংশ ভোট পড়েছে।

শেয়ার করুন

0Shares
0
অর্থনীতি, রাজনীতি এবং সাম্প্রতিক