জনসন অ্যান্ড জনসন-এর ভ্যাকসিন দেওয়া বন্ধ করল আমেরিকা

জনসন অ্যান্ড জনসন-এর ভ্যাকসিন দেওয়া বন্ধ করল আমেরিকা

টিম যুগান্তর: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৬.৮ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে ৬ জনের শরীরে জনসন অ্যান্ড জনসন-এর ভ্যাকসিন দেওয়ার ফলে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয় ফলে সরকার ভ্যাকসিন প্রদান আপাতত স্থগিত করে দেয়। অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রেও একই সমস্যা দেখা দেয়।
জনসন ও জনসনের তরফ থেকে বুধবার জানানো হয় যে তারা সোমবার থেকে শুরু হওয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নে ভ্যাকসিনের একক ডোজ সরবরাহ বন্ধ করে দিচ্ছে। ইইউতে ২০০ মিলিয়ন ডোজ বিতরণ এ বছরের দ্বিতীয় দফায় রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
অন্যদিকে, ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি জানিয়েছে যে কোভিড-১৯ প্রতিরোধে জনসন ও জনসন তৈরির ভ্যাকসিন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি ছাড়িয়ে গেছে। নিয়ন্ত্রক আরও বলেছে যে ‘রক্তের জমাট বাঁধার মতো অস্বাভাবিক বিরল ঘটনাগুলি’ যা ভ্যাকসিন প্রদানের দ্বারা ঘটছে তা মূল্যায়ন করা হচ্ছে।
এখনও পর্যন্ত ৬.৮ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে ৬ জনের দেহে এই ধরণের রক্ত জমাট বাঁধার মতো সমস্যা দেখা গেছে।
গড়ে ৫০০ থেকে ১২০০ জন মহিলার যারা গর্ভ নিরোধক বড়ি সেবন করেন এবং গড়ে ১ মিলিয়ন মানুষের মধ্যে ১৭৬৩ জন যারা ধূমপান করেন তাদের মধ্যেও বিভিন্ন সমস্যা দেখা গেছে। শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, পায়ে ফোলাভাব, তলপেটে ব্যথা, স্নায়ুজনিত সমস্যা, ঝাপসা দৃষ্টি, মাথা ব্যথা, যে অংশে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছিলো তার চারপাশে ছোটো রক্তের দাগ এই ধরনের বিভিন্ন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।
ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি জানিয়েছে যে হেপারিনের মাধ্যমে রক্ত পাতলা করার মতো চিকিৎসা চলছে যেসব রোগীদের তাদের মধ্যেই রক্ত জমাট বাঁধা বা এ জাতীয় সমস্যা দেখা গেছে।
মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লট বিশেষজ্ঞ ডাঃ জিওফ্রে বার্নসের বার্তা সহযোগে সংবাদ সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস জানায়, খুব কমই হেপারিয়ান প্রাপকরা অ্যান্টিবডি তৈরি করে যা অণুচক্রিকাকে আক্রমণ করে এবং উদ্দীপনা সৃষ্টি করে।
এই বিষয়টি অ্যাডেনোভাইরাস ভেক্টরের কারণে হচ্ছে কিনা যা জনসন অ্যান্ড জনসন ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ব্যবহার করেছে এবং এটি স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন এবং চীনের ক্যানসিনো ভ্যাকসিন এর দ্বারা প্রভাবিত কিনা এটি এখনও স্পষ্ট নয়। আপাতত, কার্যকর্তারা বলেছেন যে রক্ত জমাট বাঁধা জনিত সমস্যা থাকা সন্দেহযুক্ত রোগীদের এবং হেপারিন দ্বারা চিকিৎসাধীন রোগীদের কীভাবে করা হবে সেটা ডাক্তারদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

শেয়ার করুন

0Shares
0
এখন শরীর স্বাস্থ্য সাম্প্রতিক