নতুন সংক্রামক করোনা ভাইরাসের স্ট্রেন পাওয়া গেল শ্রীলঙ্কায়

নতুন সংক্রামক করোনা ভাইরাসের স্ট্রেন পাওয়া গেল শ্রীলঙ্কায়

টিম যুগান্তর: শ্রীলঙ্কায় এখনও পর্যন্ত যতগুলি করোনা ভাইরাসের স্ট্রেন পাওয়া গেছে তার মধ্যে সবচেয়ে প্রভাবশালী যে স্ট্রেনটি বর্তমানে পাওয়া গেছে সেটি বায়ুবাহিত এবং এর ফলে সংক্রমণ খুব তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়ছে বলে দাবি করেন কলম্বোর জয়বর্ধনপুরা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোগ প্রতিরোধ এবং আণবিক বিজ্ঞানের বিভাগ প্রধান এবং এক প্রখ্যাত রোগপ্রতিরোধ বিশেষজ্ঞ নীলিকা মালাভিজ। তাঁর কথায়, এই নতুন স্ট্রেনটি হাওয়ায় প্রায় এক ঘণ্টা স্থায়ী হতে পারে এবং এটি ছড়িয়ে পড়ার প্রবনতা অনেক বেশি।
গত সপ্তাহে নববর্ষ উদযাপনের ফলে এই নতুন স্ট্রেনটি দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেড়ে চলেছে এবং এর ফলে কম বয়সীরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে যা ইতিমধ্যেই স্বাস্থ্য দফতরের উদ্বেগ বাড়িয়েছে।
গণস্বাস্থ্য পর্যবেক্ষক উপুল রোহানা বলেন যে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে রোগটি থার্ড ওয়েভের সৃষ্টি করবে এবং এটি আগামী দু-তিন সপ্তাহের মধ্যেই ঘটবে। কোভিড-১৯ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক ইতিমধ্যেই গাইডলাইন জারি করেছে যা ৩১শে মে পর্যন্ত বহাল থাকবে। এতে বলা হয়েছে যে যেকোনও আনন্দ-অনুষ্ঠানে জমায়েত করা যাবে না। শ্রীলঙ্কায় যেখানে এপ্রিলের মাঝামাঝি অবধি দৈনিক সংক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৫০, নববর্ষ উদযাপনের পর তা বেড়ে হয়েছে ৬০০ যা যথারীতি উদ্বেগের কারণ। শ্রীলঙ্কায় ইতিমধ্যেই স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অবনতি ঘটছে। অন্যান্য দেশের ন্যায় শ্রীলঙ্কার করোনা পরিস্থিতি বেশ উদ্বেগজনক। দেশে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ৯৯,৬৯১ ছাড়িয়েছে এবং একইসাথে মৃতের সংখ্যা ৬৩৮।

স্বাস্থ্যদপ্তরের সাধারণ পরিচালক ডঃ আসেলা গুণাবর্ধনা জানিয়েছেন যে হাসপাতালগুলিতে এখনও কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা করার জন্য পর্যাপ্ত আইসিইউ ব্যবস্থা রয়েছে তবে সংক্রমণ এড়াতে স্বাস্থ্যের নির্দেশিকা অনুসরণ করা আরও গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরও বলেন, “আগে এর লক্ষণ খুব বেশি স্পষ্ট ছিল না তবে এখন এই লক্ষণগুলি কম বয়সীদের অনেক বেশি দৃশ্যমান এবং তাদের মধ্যে রোগটির বিকাশের সম্ভাবনা অনেক বেশি।” তিনি জানান, যারা রোগটি দ্বারা আক্রান্ত হচ্ছে তাদের আইসিইউ এবং অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ছে।
শ্রীলঙ্কা ছাড়াও এশিয়ার বাকি দেশগুলি যেমন ভারত, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়াতেও নতুন স্ট্রেনটি ভয়াবহতার সৃষ্টি করেছে যার ফলে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অবনতি ঘটছে ফলতঃ মৃত্যু মিছিল অব্যাহত।

শেয়ার করুন

0Shares
0
এখন সাম্প্রতিক