এক নজরে অস্কার ২০২১

এক নজরে অস্কার ২০২১

টিম যুগান্তর: দুনিয়া জুড়ে অতিমারীর প্রভাবে পৃথিবী থরহরিকম্প। প্রতি বছরের মতো এবারও অস্কারের ঐতিহ্যবাহী জমকালো তারকাখচিত আসর বসবে কিনা তা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই কাটাছেঁড়া চলছিল। গোল্ডেন গ্লোব, বাফটা, এমি, কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব― বিনোদনের এমন নানা অনুষ্ঠানই এবারে অতিমারীর কবলে পিছিয়ে গিয়েছে কিংবা ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে অ্যাকাডেমি অফ্ মোশন আর্টস্ অ্যান্ড সায়েন্স কর্তৃপক্ষের পূর্বঘোষণা অনুযায়ী প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরেও লস এঞ্জেলেসের ডলবি থিয়েটারে বহু প্রতীক্ষিত ২০২০-২১ সালের অ্যাকাডেমি পুরস্কার অনুষ্ঠান সম্পন্ন হল চলতি বছরের ২৫শে এপ্রিল। কিন্তু প্রত্যেক বছরের মত এ বছর উপস্থিত অতিথিদের তালিকা দীর্ঘ ছিল না। প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে খুবই সীমিত সংখ্যক অতিথিদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হল ৯৩তম অ্যাকাডেমি পুরস্কারের অনুষ্ঠান।

সেরা ছবির পুরস্কার ছিনিয়ে নিল ‘নোম্যাডল্যান্ড’। ছবির পরিচালক ক্লোয়ি শাও পেলেন সেরা পরিচালকের সম্মান। সেরা অভিনেত্রীর নাম ঘোষণার সময় পরিচালক আবেগপ্রবণ হয়ে উঠেলেন। কারণ, সেরা অভিনেত্রী হলেন ৬৩ বছর বয়সী ফ্রান্সিস ম্যাকডরম্যান্ড, যিনি ‘নোম্যাডল্যান্ড’-কে একাই টেনে নিয়ে গেছেন। ফ্রান্সিসের সঙ্গে যাঁরা মনোনয়ন পেয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে ফ্রান্সিস বয়সে অনেক বড়। তাঁরা হলেন ভায়োলা ডেভিস (মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম), অ্যান্ড্রা ডে (দ্য ইউনাইটেড স্টেটস্ ভার্সেস্ বিলি হলিডে), ভ্যানেসা কার্বি (পিসেস্ অফ্ এ উওম্যান) ও ক্যারি মুলিগান (প্রমিসিং ইয়াং উওম্যান)। ফ্রান্সিসের এটি তৃতীয় অস্কার। ‘থ্রি বিলবোর্ড আউটসাইড এবিং, মিসৌরি’ এবং ‘ফার্গো’ ছবিতে অনবদ্য অভিনয়ের জন্য তিনি এই পুরস্কার পান। ‘অলমোস্ট ফেমাস্’, ‘নর্থ কান্ট্রি’ আর ‘মিসিসিপি বার্নিং’–এর জন্য আরও তিনবার মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি। ছ’টি মনোনয়ন থেকে তিনটি অস্কার তাঁর ঝুলিতে।

সেরা অভিনেতার ক্ষেত্রে ‘দ্য ফাদার’ ছবিতে অভিনয় করে রীতিমতো ইতিহাস গড়লেন ব্রিটিশ-আমেরিকান অভিনেতা স্যার ফিলিপ অ্যান্থনি হপকিন্স। অস্কারের ৯৩ বছরের ইতিহাসে  অভিনেতা হিসেবে ৮৩ বছর বয়সে অস্কারজয়ী এই বর্ষীয়ান অভিনেতা ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিলেন। তিনিই ইতিহাসের সবচেয়ে জ্যেষ্ঠ অস্কারজয়ী। হপকিন্সের ঝুলিতে অবশ্য আরও একটি অস্কার আছে। ‘দ্য সাইলেন্স অব দ্য ল্যাম্বস্’ ছবিতে হলিউডের রূপোলী পর্দায় অমর ‘হ্যানিবাল লেকটার’-এর চরিত্রে অভিনয়ের জন্য অস্কার জিতেছিলেন তিনি। হপকিন্সের সাথে সেরা অভিনেতা বিভাগে মনোনয়ন প্রাপ্ত অন্য অভিনেতারা হলেন চ্যাডউইক বোসম্যান (মা রেইনি’জ ব্ল্যাক বটম), রিজ আহমেদ (সাউন্ড অফ্ মেটাল), গ্যারি ওল্ডম্যান (মাঙ্ক) ও স্টিভেন ইয়ুন (মিনারি)।

এদিকে সেরা সহ-অভিনেত্রীর পুরস্কার জিতে নিলেন দক্ষিণ কোরিয়ান অভিনেত্রী ৭৩ বছর বয়সী ইয়ু-ইউং ইউন। ‘মিনারি’ ছবিতে অনবদ্য অভিনয় করে এক ইতিহাস গড়লেন তিনি। এর আগে কোনও দক্ষিণ কোরিয়ান অভিনেত্রী এই সম্মান পাননি। সেরা অভিনেতা ও অভিনেত্রীর মত এই বিভাগের বিজয়ী ইয়ু ইউং ইউন তাঁর বিভাগে মনোনয়ন পাওয়া অন্যান্য অভিনেত্রীর তুলনায় বেশি বয়সী। অন্যান্য মনোনীতরা হলেন মারিয়া বাকালোভা (বোরাট সাবসিকোয়েন্ট মুভিফিল্ম), গ্লেন ক্লোজ (হিলবিলি এলিজি), অলিভিয়া কোলম্যান (দ্য ফাদার) আর আমান্ডা সাইফ্রায়েড (মাঙ্ক)।

অন্যদিকে “জুডাস্ অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসিহা’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সেরা সহ-অভিনেতার পুরস্কার পেলেন ৩২ বছর বয়সী তরুণ ব্রিটিশ কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেতা ড্যানিয়েল কালুয়া। এই বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিলেন সাশা ব্যারন কোহেন (দ্য ট্রায়াল অব দ্য শিকাগো সেভেন), লেজলি ওডোম জুনিয়র (ওয়ান নাইট ইন মায়ামি), পল রাসি (সাউন্ড অব মেটাল) ও লাকিথ স্ট্যানফিল্ড (জুডাস্ অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসিহা)। এর আগে ২০১৭ সালের থ্রিলার ‘গেট আউট’ সিনেমার জন্য সেরা অভিনেতা বিভাগে অস্কার মনোনয়ন পেয়েছিলেন। ছিল বাফটা, গোল্ডেন গ্লোব, ক্রিটিক্স চয়েস্ অ্যাওয়ার্ড। তাই তিনি অস্কারের যথাযোগ্য প্রাপক।

এদিকে “মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম” সিনেমার জন্য মিয়া নীল আর জামিকা উইলসনের হাতে উঠেছে সেরা মেকআপ আর্টিস্ট আর হেয়ার স্টাইলিস্টের পুরস্কার। এই প্রথম এই দুটি বিভাগে দুজন কৃষ্ণাঙ্গ নারী জিতে নিলেন অস্কার।

সেরা কস্টিউম ডিজাইনের জন্য পুরস্কৃত হলেন “মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম” এর ডিজাইনার অ্যান রথ।

“প্রমিসিং ইয়াং ওম্যান” ছবির  জন্য সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য রচনা করে সেরা চিত্রনাট্যকার বিভাগের বিজয়ী হলেন ৩৫ বছরের অভিনেত্রী, পরিচালক, প্রযোজক এমারেল্ড ফেনেল। তিনিই প্রথম ব্রিটিশ মহিলা পরিচালক যিনি অস্কারের সেরা পরিচালক বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছেন।

এদিকে ‘জুডাস্ অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসিহা’ সিনেমায় ‘ফাইট ফর ইউ’ গানটির জন্য অস্কার পেলেন ২৩ বছর বয়সী মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ গায়িকা হার।

বেস্ট সাউন্ডের পুরস্কার পেলেন জেমি বাকট “সাউন্ড অফ্ মেটাল” এর জন্য।

“অ্যানাদার রাউন্ড” ছবির জন্য সেরা আন্তর্জাতিক ফিচার ফিল্ম পরিচালকের পুরস্কার পেলেন বিখ্যাত ড্যানিশ পরিচালক থমাস ভিন্টারবার্গ।

সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার ফিল্মের পুরস্কার জিতে নিলেন “বেস্ট অ্যানিমেটেড ফিচার ফিল্ম” বিভাগে ন’বার মনোনীত পরিচালক পিটার ডক্টরের “সোল”। এর আগে “আপ” এবং “ইনসাইড আউট” এর জন্য তিনি দু’বার সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার ফিল্ম বিভাগে অস্কার জিতে নিয়েছিলেন। একই বিভাগে তিনবার অস্কার পেয়ে রেকর্ড তৈরি করলেন পিটার।

সেরা অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্ম নির্বাচিত হয়েছে মাইকেল গোভিয়ার এবং উইল ম্যাককরম্যাক পরিচালিত ” ইফ্ এনিথিং হ্যাপেনস্ লাভ ইউ”।

সেরা তথ্যচিত্রের পুরস্কার পেল পিপ্পা এরলিচ এবং জেমস্ রিড পরিচালিত তথ্যচিত্র “অক্টোপাস্ টিচার”। ছবিটি বাফটা পুরস্কারও পেয়েছে।
সেরা লাইভ অ্যাকশান শর্ট ফিল্ম বিভাগে পুরস্কৃত হল ট্র্যাভন ফ্রি এবং মার্টিন ডেসমন্ট রো পরিচালিত “টু ডিস্ট্যান্ট স্ট্রেঞ্জারস্”।

এবছর সবচেয়ে বেশি মনোনয়ন পেয়েছে সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার খ্যাত অ্যামেরিকান পরিচালক ডেভিড অ্যান্ড্রু লিও ফিঞ্চারের ছবি “ম্যাঙ্ক”।

সেরা সিনেমাটোগ্রাফির জন্য পুরস্কার পেলেন “ম্যাঙ্ক” ছবির জন্য এরিক মেসারচিমিট।
বেস্ট প্রোডাকশন ডিজাইনের জন্য পুরস্কার পেলেন ডোনাল্ড গ্রাহাম বার্ট। সেটাও “ম্যাঙ্ক” ছবির জন্য।

বেস্ট ফিল্ম এডিটিং এর পুরস্কার পেলেন মিকেল ই. জি. নিলসেন “সাউন্ড অফ্ মেটাল” ছবির জন্য।

ফ্রান্সিস ম্যাকডোরম্যান্ড ছাড়া এবারের অস্কারের প্রথম পাঁচটি বিভাগে কোনও ‘হোয়াইট মার্কিন’ নেই। রয়েছেন দুজন এশীয় নারী, চীনের ক্লোয়ি ঝাও আর দক্ষিণ কোরিয়ান অভিনেত্রী ইয়া জাং উন। সেরা পাঁচের তিনজনই ষাটোর্ধ্ব। “বুড়ো হাড়ে ভেলকি”র যাদু আজ পুরো দুনিয়ার উদাহরণ। অস্কারকে ‘বর্ণবাদী’, ‘ব্রিটিশঘেঁষা” আর ‘পুরুষতান্ত্রিক’ বলে দোষারোপ করা যাবে না। বিভিন্ন ক্ষেত্রেই এবারের অস্কার “প্রথম”। এবারের অস্কার পৃথিবীর রঙিন বিনোদন জগতকে আরও রঙিন করে তুলেছে।

শেয়ার করুন

0Shares
0
সংস্কৃতি সাম্প্রতিক